টলিউড

অনেকদিন হলো, তাড়াতাড়ি চলে আয় বুনু! তুই ছাড়া আমি পঙ্গু! বোনকে খোলা চিঠি দিদির

রবিবার দুপুর ১২টা বেজে ৫৯ মিনিটে দীর্ঘ লড়াই শেষে চলে যান জিয়ন কাঠি খ্যাত অভিনেত্রী! মাত্র ২৪ বছর বয়সে প্রয়াত হন এই অভিনেত্রী! তাঁর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ টলিউড! তাঁর ফিরে আসার জন্য প্রার্থনা করেছিলেন সবাই! কিন্তু সবার সব প্রার্থনা বিফলে দিয়ে প্রয়াত হন তিনি! বোনকে নিজের হাতে সাজিয়ে বিদায় জানিয়েছেন ঐন্দ্রিলা শর্মার দিদি ঐশ্বর্য শর্মা! যে বোন হয়ত একদিন দিদিকে সাজাতো সেই দিদিই বোনের অন্তিম শয্যায় বোন’কে সাজিয়ে দিয়েছিল! সেই ছবি দেখে চোখ ভিজেছিল সবার! গলার কাছে কষ্ট দলা পাকিয়ে উঠেছিল!

ঐন্দ্রিলা নেই! কিন্তু ঐন্দ্রিলার স্মৃতি এখনও তাড়া করছে বহু বাঙালি’কে! আর সেই সদ্য সন্তান হারা পরিবারটার পক্ষে এই আঘাত সামলানো যে বড্ড কঠিন! ঐন্দ্রিলা’কে হারানোর শোকে বুফে গোটা পরিবার! দু’দিন আগেই ঐন্দ্রিলার দিদি ঐশ্বর্য শর্মা খোলা চিঠি লেখেন সদ্য হারানো বোনের উদ্দেশ্যে! তিনি লিখেছিলেন, “আমার ছোট্ট বুনু..এইভাবেই সারাজীবন দুজন দুজনের হাত ধরে বেঁচে ছিলাম , আছি এবং থাকবো!” সোশ্যাল মিডিয়ায় পাতায় ছোটবেলার ছবি ভাগ করে নিয়েছিলেন তিনি!

এদিন বোনের উদ্দেশ্যে ফের এক খোলা চিঠি লিখলেন তিনি! আসলে সদ্য বোন হারানোর কষ্ট তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে দিদিকে! ঐশ্বর্য’র সোশ্যাল মাধ্যম জুড়ে শুধুই বোনের স্মৃতি! তিনি লেখেন, “অনেকদিন তো হলো ,এবার তাড়াতাড়ি চলে আই বুনু। তুই ছাড়া আমি যে পঙ্গু। কে আমাকে সাজিয়ে দেবে বলতো ?কে আমার ছবি তুলে দেবে ? কে না বলা মনের কথা গুলো আমার মুখ দেখে বুঝে যাবে ? কে Aladdin এর আশ্চর্য্য প্রদীপ এর মতো আমার সমস্ত মনের ইচ্ছে পূরণ করবে ?কার সাথে আমি ঘুরতে যাবো ?কার সাথে পার্টি করবো? কার সাথে আমি সারারাত জেগে সিনেমা দেখবো গল্প করবো ? কে আমাকে সঠিক পরামর্শ দেবে ?আমাদের এখনো কত প্ল্যান্স বাকি আছে বলতো ? কে আমাকে নিঃস্বার্থ ভাবে ভালোবাসবে ?কে আমার জন্য পুরো পৃথিবী র সাথে লড়বে,আমাকে আগলে রাখবে  ?আমার যে তুই ছাড়া র কোনো best friend নেই। তুই যে আমার জীবনীশক্তি। এই ২৪ বছর এ আমি যে নিজে থেকে কিছুই করতে শিখি নি বুনু। আমি জানি তুই সাবলম্বী কিন্তু তোর দিদিভাই যে তোকে ছাড়া খুব অসহায়।  তাড়াতাড়ি আমার কাছে চলে আই বুনু।  অপেক্ষায় রইলাম।”

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে বুধবার পর পর হৃদরোগে আক্রান্ত হন অভিনেত্রী! এরপর শনিবার বিকেলে ফের হৃদরোগে আক্রান্ত হন অভিনেত্রী! এরপর শনিবার রাতে ১০ বার হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি! এরপর রবিবার সকালে ফের হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি! বহুচেষ্টা করেও তাঁকে কোমা থেকে ফেরানো যায়নি! উল্লেখ্য, গত ১লা নভেম্বর ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছিলেন অভিনেত্রী! তাঁকে হাওড়ার হাসপাতালে ভর্তি করে রাখা হয়েছে! সেখানেই অস্ত্রপচার হয় অভিনেত্রী’র! প্রথমদিকে অবস্থা এতটা গুরুতর না হলেও অবস্থা অত্যন্ত সংকটপূর্ণ হতে থাকে! দুবার ক্যান্সার’কে হারিয়ে ফিরে এসে সাজিয়ে নিয়েছিলেন নিজের জীবনটা নতুন করে! কিন্তু তার সেই ভালো থাকা বেশি দিনের জন্য স্থায়ী হলো না! ব্রেন স্ট্রোক ও লাগাতার হৃদরোগ  আক্রান্ত হয়ে গতকাল অকাল প্রয়াত হলেন তিনি!

উল্লেখ্য, কালার্স বাংলার ‘ঝুমুর’ ধারাবাহিক দিয়ে বাংলা টেলিভিশনের জগতে পা রাখেন মুর্শিদাবাদের মেয়ে ঐন্দ্রিলা। এরপর স্টার জলসার ‘জীবন জ্যোতি’ ধারাবাহিকেও মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। তবে তিনি সর্বাধিক জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন সান বাংলার ‘জিয়ন কাঠি’ ধারাবাহিকে অভিনয় করে! সেই ২০১৫ সাল থেকে ক্যানসারের সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছিলেন তিনি। গত বছর ফের একবার তাঁর শরীরে হানা দেয় কর্কট রোগ! মানসিক জোড় ছিল অসম্ভব! নিজের শরীরের সঙ্গে তীব্র লড়াই করলেও এবারের লড়াইটা হেরে গেলেন তীব্র আত্মবিশ্বাসী, ধৈর্য্যশীল, অদম্য সাহসী ঐন্দ্রিলা!

নাচতে ভীষণ ভালোবাসতেন ঐন্দ্রিলা! সেইসঙ্গে অভিনয়ের প্রতিও ছিল অদম্য টান! পড়াশোনাতেও ভালো ছিলেন! কলকাতার একটি বেসরকারি কলেজে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার জন্য ভর্তিও হয়েছিলেন তিনি। কিন্তু নিজের শারীরিক অসুস্থতার কারণে সেই কোর্স আর শেষ করতে পারেননি তিনি। কারণ একাদশ শ্রেণীতে থাকাকালীন অবস্থায় তিনি মারণ রোগ ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছিলেন! সেইসময় চিকিৎসকরা বলেছিলেন আর ছয় মাস আছেন তিনি! কিন্তু সেই সময় সবার কথা মিথ্যে করে জীবন যুদ্ধে জয়ী হন ঐন্দ্রিলা! ফেরেন স্বাভাবিক জীবনে!   কিন্তু গতবছর ফের ক্যান্সারে আক্রান্ত হন তিনি! সেই লড়াইও জিতে ফিরে আসেন তিনি! তবে এবার আর ফিরলেন না তিনি!







Back to top button