বিনোদন

আমার গলাকে ঘেন্না করত লোকে! কীভাবে নিজেকে তৈরি করলেন অরিজিৎ? জানালেন কঠিন লড়াইয়ের কাহিনী

অরিজিৎ সিং এর সুরের মূর্ছনায় মাতাল গোটা বিশ্ব। এই মুহূর্তে প্লেব্যাক সিঙ্গারদের মধ্যে শীর্ষে রয়েছেন তিনি। এক একটি শো থেকে তার রোজগার প্রায় কোটি টাকার বেশি। কিন্তু প্রথমে বিষয়টি এত সহজ ছিল না। ফেম গুরুকুল গানের প্রতিযোগিতা থেকে বাদ পড়েছিলেন তিনি। তবে ধীরে ধীরে কঠিন অধ্যবসায়, দক্ষতা এবং ভাগ্য এই সবের মিশেলে আজ এই জায়গায় পৌঁছেছেন অরিজিৎ সিং।

   

১৯৮৭ সালের ২৫ এপ্রিল মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জের জন্মগ্রহণ করেন এই গায়ক। আজ তার জন্মদিন।২০২৩-এ ৩৬-এ পা রাখলেন গায়ক। বলিউডি ছবির একাধিক হিট গানে অরিজিৎ-এর কণ্ঠের জাদু মুগ্ধ করে শ্রোতাদের। রুপোলি পর্দায় নায়কের লিপে অরিজিৎ-এর কণ্ঠ সিনেমায় নিয়ে আসে নতুন মাত্রা।

কিন্তু এই সাফল্য একদিনে আসেনি। তার জন্য করতে হয়েছে কঠিন সাধনা। নিজেকে ভেঙেচুরে আজ সফলতার শিখরে তিনি। এই প্রসঙ্গে গায়ক জানান, “আমার গলা কী এরকম ছিল নাকি? আমার আগের গলা সকলে ঘেন্না করত। রীতিমতো, গলাকে ভেঙে ভেঙে টেক্সচার বানাতে হয়েছে আমায়। নিজেকে গড়তে হয়েছে। নিজের উপর অনেক অত্যাচার করেছি আমি”।

অরিজিৎ সিং এর একটা লাইভ কনসার্ট দেখার জন্য আকুল হয়ে থাকেন শ্রোতারা। গিটার হাতে মঞ্চে উঠলে বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়ে অডিটোরিয়াম। তবে শুরুর দিকটা কঠিন থাকলেও একটা গানই তার জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিল।

রণবীর কপুর ও সোনম কপুর অভিনীত সাওয়ারিয়া ছবির টাইটেল ট্র্যাকে অরিজিৎ-কে সুযোগ দেন পরিচলক সঞ্জয় লীলা বানসালি। কিন্তু, দুর্ভাগ্যবসত সেই গান মুক্তি পায়নি। এরপর মার্ডার ২-এর ‘মহাব্বতে’ গান গেয়েছেন তিনি। কিন্তু যেই গান মূলত তার ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দিয়েছিল তা হল আশিকি টু সিনেমার গানগুলি।

Back to top button