বিনোদন

আজও আগলে রেখেছেন মায়ের স্বপ্ন! দোল উৎসবের আগে ফের একবার মায়ের স্মৃতিতে ডুব দিলেন ইমন

দোল উৎসবের শুরু টা হয়েছিল মায়ের হাত ধরেই। কিন্তু আজ মা নেই। তবে উৎসব আসে কালের নিয়মে। আর সেই উৎসবকে টিকিয়েও রেখেছেন ইমন চক্রবর্তী মায়ের স্মৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতে। দোল উৎসবের আগে ফের একবার মায়ের স্মৃতি রোমন্থন করলেন গায়িকা।

   

গায়িকা বলেন, “বসন্ত উৎসবের শুরু মায়ের হাত ধরেই। এমনকি আমি যে স্কুল এখন চালাই সেটাও মায়ের তৈরি করা। মা আগে আমাদের বাড়ির সামনের গলিতে খাট পেতে ছাত্রদের নিয়ে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল। এখন সেই অনুষ্ঠান আমি চালাই। আমার কিছুটা পরিচিতি আছে, তাই স্পন্সর পাই। বড় করে অনুষ্ঠান করতে পারি”।

ইমন জানান, “মায়ের কাছে পড়াশোনার আগে গান ছিল। মাধ্যমিকের সময় আগে সকালে উঠে রেওয়াজ করে, পড়া রিভাইস করে পরীক্ষা দিতে যেতাম। সাড়ে তিন বছর বয়সে মায়ের সঙ্গে প্রথমবার স্টেজে পারফর্ম করি। মায়ের কাছেই প্রথম তালিম পাই। কড়া শাসনে রাখতেন আমায় আমার মা। একেবারে তালিবানি শাসন”।

ইমনের মা-ই তাঁকে দেখিয়েছিলেন গান গাওয়ার স্বপ্ন। মার কাছেই প্রথম সরগম শেখা। গানের জগতে নিজের পরিচিতি গড়েছেন খুব অল্প বয়সেই। শুধু যে নিজে ভালো গান গাইছেন এমন নয়, তাঁর হাত ধরে বহু নতুন প্রতিভাও জায়গা করে নিয়েছে টলিউডে।

প্রসঙ্গত, মাতৃ বিয়োগের পর একেবারেই ভেঙে পড়েছিলেন গায়িকা। সেই সময় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা গান থাকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করেছিল এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। এই প্রসঙ্গে তার সংযোজন, “মায়ের মৃত্যুর পর ডিপ্রেশনে চলে গিয়েছিলাম। তারপর সময়ের সঙ্গে কামব্যাক করতে শুরু করি। তখন আমি রবীন্দ্রনাথের একটি বই পড়েছিলাম। সেখানে লেখা আছে মৃত্যু মানে আত্মার মৃত্যু নয়, মৃত্যু মানে মানুষের শরীরের মৃত্যু। এবং আত্মার এক ঘর থেকে আর এক ঘরে যাওয়া। এটা আমায় ভীষণভাবে নাড়া দিয়েছিল। তার মানে আমার মা বেঁচে আছে এখনও। এবং অনেক বেশি করে মাকে আমি ফিল করতে শুরু করেছিলাম”।

Back to top button