লাইফস্টাইল

নিশ্চিন্তে কাটান অবসর! রোজ ৪৪২ টাকা জমিয়ে পান ৫ কোটি, কীভাবে করবেন বিনিয়োগ?

অবসরের পর বিনিয়োগ নিয়ে অনেকেই চিন্তিত থাকেন। কিভাবে বাকি জীবন কাটবে সেই সংশয় দেখা দেয়। তবে এবার সেই চিন্তা খানিকটা হলেও হয়তো মিটবে। বিশেষজ্ঞরা এক বিশেষ পরামর্শ দিচ্ছেন এবার। সেই মত চললে ভবিষ্যত হতে পারে নিশ্চিত।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এনপিএস বা ন্যাশনাল পেনশন সিস্টেম একটি ভালো উপায় হতে পারে এক্ষেত্রে। সামান্য বিনিয়োগে বিপুল টাকা পাওয়া যায় এই সব খাতে। কিন্তু কীভাবে কতটা বিনিয়োগ করবেন? কতটা বিনিয়োগ সেফ সেই সব কিছুর হদিশও দিয়েছেন তাঁরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যদি কেউ অবসরের সময় অর্থাৎ ৬০ বছর বয়সে ৫ কোটি টাকা চান এবং তিনি ২৫ বছর বয়সের আগে চাকরিতে ঢুকেছেন। তবে বলে রাখা ভালো এই পদ্ধতি যারা সবে চাকরিতে ঢুকেছেন তাঁদের জন্যই। এখানে ২৫ বছর থেকে যদি প্রতিদিন আপনি ৪৪২ টাকা করে জমান তাহলে ৬০ বছর বয়সে তিনি ৫ কোটি টাকার মালিক হবেন।

এখন প্রশ্ন উঠতেই পারে কিভাবে সম্ভব? প্রতিদিন ৪৪২ টাকা মানে মাসে ১৩,২৬০ টাকা বিনিয়োগ। এবার ২৫ বছর থেকে যদি আপনি ৬০ বছর পর্যন্ত বিনিয়োগ করেন, বিনিয়োগের সময়কাল হয় ৩৫ বছর।এনপিএসে গড়ে ১০ শতাংশ হারে সুদ পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এইভাবে চক্রবৃদ্ধি সুদের ৬০ বছর বয়সে তিনি ৫.১২ কোটি টাকার মালিক হবেন।

কিন্তু সেক্ষেত্রে ৫ কোটি কিভাবে হচ্ছে? চক্রবৃদ্ধি সুদের হারে এটা সম্ভব।চক্রবৃদ্ধিতে মূল পরিমাণের উপর সুদ মিলবে, এছাড়াও সুদের উপরেও সুদ পাওয়া যাবে। ৩৫ বছরে ৫৬.৭০ লাখ টাকা বিনিয়োগের উপর ৪.৫৫ কোটি টাকা সুদ পেতে পারেন। এরফলে সুদ আসল মিলে দাঁড়াবে ৫.১২ কোটি টাকা।

কিন্তু, আরও একটা বিষয় মাথায় রেখেই চলতে হবে। এনপিএসে ম্যাচিউরিটির সময় পুরো টাকা তুলতে পারবেন না আপনি। সেক্ষেত্রে ৬০ শতাংশ টাকা তোলা যায়। যার অর্থ ৩ কোটি টাকা তুলতে পারবেন। বাকি ২ কোটি টাকা ফের বিনিয়োগ করতে হবে।

Back to top button