বিনোদন

উত্তরপ্রদেশের কুস্তির আখড়া থেকে প্রসেনজিতের বডিগার্ড! বুম্বাদার বহু অজানা কাহিনীর সাক্ষী রাম সিং

ছোট থেকেই ছিল পেটানো চেহারা। সেই কারণে অনেকেই পরামর্শে দিয়েছিলেন বড় হয়ে বাউন্সার হওয়ার। এরপরেই বাবার হাত ধরে কলকাতায় আসা। তারপর একটু একটু করে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছে, আজ তিনি প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের সর্বক্ষণের ছায়া সঙ্গী। টলিউডের এক নম্বর হিরোর বডিগার্ড রাম সিং।

৬ফুট ২ ইঞ্চি, ওজন ১১৫ কেজির রাম সিংকে সর্বক্ষণই দেখা যায় প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে। কেরিয়ারের শুরুতে প্রথম দুই বছর দেবের বডিগার্ড হিসেবে কাজ করেন তিনি। এরপর থেকে বুম্বাদার দেহরক্ষী হিসেবে যোগ দেন। তারপর কেটেছে প্রায় ১৫ বছর। এখনও বুম্বাদার সঙ্গেই রয়েছেন তিনি।

রাম সিং জানান, “প্রথমে একবার বলা হয়েছিল শাহরুখ খানের এক ইভেন্টে যাওয়ার জন্য৷ গিয়েছিলাম, কিন্তু সেখানে শাহরুখ খান আসেননি৷ আমি আমার কাজ করে চলে আসি৷ ১৫০ টাকা পাই, সেটাই ছিল আমার প্রথম আয়৷ ফিরে এসে ১০০টাকা মায়ের হাতে তুলে দিয়েছিলাম”৷ এরপর টলিউডে কাজের সুবাদে একের পর এক তারকাদের সঙ্গে আলাপ হয়। সেখান থেকেই প্রথমে দেব ও পরে প্রসেনজিতের দেহরক্ষী হিসেবে কাজ করেন তিনি।

বাটানগরে পরিবার নিয়ে থাকেন রাম সিং। স্ত্রী, ছেলে, বাবা, মাকে নিয়ে তাঁর সংসার। তবে ব্যস্ততার জেরে পরিবারকে প্রায় সময় দেওয়া হয় না বলেই জানান তিনি। এমনকি শ্যুটিং-এর জন্য কখনও কখনও বাড়ি ফেরা হয় না। তবে দীর্ঘ সময় প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে থাকতে থাকতে যেমন তাঁর স্নেহভাজন হয়ে উঠেছেন রাম তেমনই হয়ে উঠেছেন তাঁর পরিবারের একজন।

Back to top button